বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন
  • ২ ভাদ্র, ১৪২৪
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২১st মার্চ ২০১৭

মন্ত্রিসভার বৈঠকে নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা আইনের খসড়া অনুমোদন


প্রকাশন তারিখ : 2017-03-21

মন্ত্রিসভা ভূমি ব্যবস্থাপনা পদ্ধতিতে শৃংখলা আনয়ন এবং ভূমির পরিকল্পিত ব্যবহার নিশ্চিতকরণে নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা আইন-২০১৭ এর খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদন করেছে। সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়।
বৈঠক শেষে মন্ত্রী পরিষদ সচিব এম শফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেন, এ আইন পাস হলে শহর ও নগর উন্নয়নে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত সকল সরকারি-বেসরকারি ভূমি ব্যবহার এবং ব্যবস্থাপনায় প্রয়োজনীয় ছাড়পত্র নিতে হবে।
প্রস্তাবিত আইনে ভূমি ব্যবহারে ছাড়পত্র প্রদানে একটি উচ্চ পর্যায়ের উপদেষ্টা পরিষদ গঠনের কথা বলা হয়েছে। এ পরিষদ ছাড়পত্র প্রদানে যে কোন সুনির্দিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ক্ষমতা প্রদান করতে পারবে। এ উপদেষ্টা পরিষদের প্রধান হবেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী। পরিষদ নগর উন্নয়ন অধিদফতর ও অন্যান্য রেগুলেটরি সংস্থাকে প্রাথমিক পলিসি সাপোর্ট প্রদান করবে।
মন্ত্রী পরিষদ সচিব বলেন, দৈনন্দিন কর্মকান্ড পরিচালনায় প্রস্তাবিত আইনে গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিবকে চেয়ারম্যান করে একটি নির্বাহী পরিষদ (ইসি) গঠনের বিধান রাখা হয়েছে। ইসি সিদ্ধান্ত অনুমোদন ও বাস্তবায়নে উপদেষ্টা পরিষদের কাছে প্রস্তাব পাঠাবে। যে কেউ প্রস্তাবিত আইন, পরিকল্পনা অথবা নির্দেশনা লংঘন করলে ৫ বছরের কারাদন্ড ও সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।
মন্ত্রিসভার বৈঠকে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পাদিত দ্বিপাক্ষিক পুঁজি বিনিয়োগ উন্নয়ন ও সুরক্ষা চুক্তির সম্পূরক অংশ হিসেবে ‘জয়েন্ট ইন্টারপ্রেটেটিভ নোটস’ স্বাক্ষরের প্রস্তাবও অনুমোদন করা হয়। এছাড়া ২৫ মার্চকে ‘গণহত্যা দিবস’ ঘোষণা এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে দিনটি পালনে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ জারিকৃত এ বিষয়ক পরিপত্র ‘ক’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাবও অনুমোদন করা হয়।
মন্ত্রিসভা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে গবেষণার জন্য ফেলোশিপ ও উদ্ভাবনীমূলক কাজে অনুদান প্রদান সম্পর্কিত (সংশোধিত) নীতিমালা ২০১৬-এর খসড়াও অনুমোদন করেছে। এছাড়া বালাইনাশক আইন-২০১৭, বস্ত্র আইন-২০১৭ এবং প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড আইন-২০১৭ এর খসড়াও নীতিগতভাবে অনুমোদন করেছে।
মন্ত্রিসভা প্রস্তাবিত অরবিট ফ্রিকোয়েন্সি কো-অর্ডিনেশন অব সাউথ এশিয়া স্যাটেলাইট সংক্রান্ত বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে একটি চুক্তির খসড়াও অনুমোদন করেছে। ভারত এই স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করবে। এটি সার্ক দেশগুলোতে যৌথভাবে কাজ করবে। তবে এই স্যাটেলাইট এ বছরের শেষ দিকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের যে পরিকল্পনা রয়েছে, তাতে কোন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে না বলে মন্ত্রী পরিষদ সচিব জানান।
মন্ত্রী পরিষদ সচিব আরও বলেন, বালাইনাশক আইন-২০১৭ ‘বালাইনাশক অধ্যাদেশ ১৯৭১ এবং পরবর্তীতে ২০০৭ ও ২০০৯ এর সংশোধনীকে অনুবাদ করে বাংলায় প্রণয়ন করা হয়েছে। একমাত্র আইন ভঙ্গের দায়ে শাস্তির বিধানটি ছাড়া এ আইনে আর কোন পরিবর্তন আনা হয়নি।
বস্ত্র আইন-২০১৭ এর লক্ষ্য হচ্ছে যে সকল ক্রেতা সরকারের বেসরকারিকরণ নীতির আওতায় কল-কারখানা কিনেছেন, কিন্তু চুক্তি লংঘন করেছেন, সেগুলোর ফিরিয়ে আনা।
প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড আইন-২০১৭ প্রবাসী শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা ও কল্যাণে ১৯৯০ সালের জাতিসংঘ কনভেনশনের আলোকে প্রণয়ন করা হয়েছে।
বৈঠকের শেষ পর্যায়ে মন্ত্রিসভা শ্রীলংকার বিরুদ্ধে শততম টেস্ট ম্যাচে বিজয়ের জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও কোচকে অভিনন্দন জানিয়ে একটি প্রস্তাব গ্রহণ করে।