বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন
  • ১ পৌষ, ১৪২৪
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৬ ডিসেম্বর ২০১৭

জয়পুরহাটে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে খামার যান্ত্রীকরণ প্রকল্প


প্রকাশন তারিখ : 2017-12-06

খাদ্য উৎপাদনে উদ্বৃত্ত জেলা জয়পুরহাটে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে খামার যান্ত্রীকরণ প্রকল্প। 
স্থানিয় কৃষি বিভাগ সূত্র বাসস’কে জানায়, সদর উপজেলার চকবরকত ইউনিয়নের ভূটিয়াপাড়াতে কৃষক মোঃ জাকির হোসেনের ৩০ শতক আয়তনের জমিতে বুধবার ’খামার যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি (২য় পর্যায়) প্রকল্পের আওতায় “পাওয়ার টিলার চালিত বেড প্লান্টার যন্ত্রের ব্যবহার প্রদর্শনী” এবং মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। সদর উপজেলার চকবরকত ইউনিয়নের ভূটিয়াপাড়ার মোঃ খায়রুজ্জামান মাস্টারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার স্মৃতি রাণী সরকার। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জয়পুরহাট সদর উপজেলা কৃষি অফিসার, কৃষিবিদ মোঃ সেরাজুল ইসলাম সাজু। বক্তারা বলেন, বর্তমান কৃষি বান্ধব সরকারের সহায়তায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে সঠিক সময়ে কৃষকদের বেড পদ্ধতিতে গম, ডাল জাতীয় ফসল, আলু ফসল সারিতে বপনে, শ্রমিক সংকট নিরসনে ও সেচ সাশ্রয়ী প্রযুক্তি হলো পাওয়ার টিলার চালিত বেড প্লান্টার যন্ত্র, যা ব্যবহারে ১০-১৫% বীজ সাশ্রয় হয় এবং সারিতে বপনের ফলে ১০-১৫% ফলণ বৃদ্ধি পায়, একজন চালক ঘন্টায় ৩০-৪০ শতক জমি মেশিনের সাহায্যে বেড তৈরির মাধ্যমে সারিতে গমসহ আলু, ডাল জাতীয় ফসল বপন করতে সক্ষম হয়। গম বপনের পরে পাখি তাড়ানোর জন্য কোন শ্রমিক লাগে না, সারিতে বপনের জন্য সহজেই ইঁদুরের আক্রমণ থেকে গম ফসল রক্ষা করা যায় এবং গম কর্তন করার পরে একই বেডে শাক-সবজি উৎপাদন করা সম্ভব হয়ে থাকে। এছাড়া পাওয়ার টিলার চালিত সিডার যন্ত্রের সাহায্যে সারিতে সরিষা, গম,তিল সহ অন্যান্য ফসল ঘন্টায় ৪০শতক পর্যন্ত বপন করা যায়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় ৫০% উন্নয়ন সহায়তা বা তূতর্কির মাধ্যমে একজন কৃষক এ যন্ত্রসমূহ ক্রয় করতে পারবেন। অনুষ্ঠানে সহকারি কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার, আব্দুল গণি, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার-অমল চন্দ্র মন্ডল, সংশ্লিষ্ট ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা, চকবরকত ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক সহ প্রায় ২০০ জন কৃষক-কৃষাণী উপস্থিত ছিলেন।