বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন
  • ১ পৌষ, ১৪২৪
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৬ জানুয়ারি ২০১৭

বাংলাদেশ কাস্টমস সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে নিবেদিত হবে : প্রধানমন্ত্রী


প্রকাশন তারিখ : 2017-01-26

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করে বলেছেন, বাংলাদেশ কাস্টমস বর্তমান সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে নিবেদিত হবে।
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ কাস্টমস রাজস্ব আদায়ে গতিশীলতা বৃদ্ধি, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন প্রতিরোধ এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে এখাতে সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে নিবেদিত হবে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহামানের স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।’
আগামীকাল আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী আজ বুধবার এক বাণীতে এ কথা বলেন। দিবসটির এ বছরের মূল প্রতিপাদ্য ‘ডেটা এ্যানালাইসিস ফর ইফেকটিভ বর্ডার ম্যানেজমেন্ট’।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের ও ২০৪১ সালে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে উন্নীত করতে প্রয়োজন যথাযথ রাজস্ব আহরণ, চোরাচালান রোধ, শিল্প-বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের ক্রমাগত প্রসার ও বৃদ্ধি। আর এ কাজে দেশের জাতীয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ কাস্টমস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।
তিনি বলেন, তাদের দায়িত্ব আরো দক্ষতার সাথে পালনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ কাস্টমস বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা (ডাব্লুটিও, বিশ্ব কাস্টমস সংস্থা (ডাব্লুসিও ) এবং উন্নত দেশে অনুসৃত আধুনিকায়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। অন্যান্য দেশের কাস্টমস কর্তৃপক্ষের মতো বিশ্ব কাস্টমস সংস্থার প্রতি বছরের ঘোষিত বিষয় বাংলাদেশ কাস্টমস ও তার অংশীজনদের মধ্যে প্রচার করে যাচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তথ্য ও ঝুঁকি বিশ্লেষণের মাধ্যমে সীমান্তের অপবাণিজ্য বা চোরাচালান রোধ করে বৈধ বাণিজ্যকে উৎসাহিত করা সম্ভব। এতে করে আন্তঃরাষ্ট্রীয় তথা বৈদেশিক বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে এবং অর্থনৈতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। তথ্য ও ঝুঁকি বিশ্লেষণ অটোমেশন প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হলে শ্রম ও সময়ের অপচয় হবে না।
তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি যে, এ প্রক্রিয়া ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশ কাস্টমস সে লক্ষ্যেই কাজ করছে। এসাইকুডা ওয়ার্ল্ড ও ন্যাশনাল সিঙ্গেল উইন্ডোর (এনএসডাব্লু) বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ তারই প্রমাণ।’
বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস পালন করা হচ্ছে জেনে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং কাস্টমস বিভাগের সব কর্মকর্তা-কর্মচারি ও সেবাগ্রহীতাসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান।
একই সাথে তিনি ‘আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস-২০১৭’ উপলক্ষে আয়োজিত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।